May 19, 2022
Sunday, 28 November 2021 18:08

নবীগঞ্জে শান্তিপুর্ণভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন | নৌকা-৪, বিদ্রোহী-৪, বিএনপি-৩ ও স্বতন্ত্র-২ নির্বাচিত

মোঃ হাসান চৌধুরী.

বার্তা সম্পাদক : দৈনিক নবীগঞ্জের ডাক। 

নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে অনুষ্টিতব্য নির্বাচনে দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া উৎসব মূখোড় পরিবেশে শান্তিপুর্ণভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়েছে। রবিবার (২৮ নভেম্বর) সকাল ৮ ঘটিকা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহন শুরু হয়। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, এক্সিকিউটিভ  ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা কটোর অবস্থানে ছিলেন। সার্বিক তত্ত¡াবধানে ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, এডিশনাল এসপি, সার্কেল এসপি (বাহুবল)। হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ইশরাক  জাহান নবীগঞ্জের বেশ কয়েকটি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার সর্বত্র নিরাপত্তা চাদরে ছিল ঢাকাঁ। নির্বাচনে সহিংসতা এড়াতে মোবাইল টিমের পাশাপাশি দায়িত্বে ছিলেন স্ট্রাইকিং ফোর্স। কুর্শি ইউনিয়নের গহরপুর সেন্টারে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট পেপার যথা সময়ে না পৌছায়  ভোটারদের মাঝে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। পরে সকাল ১১টায় ওই কেন্দ্রে ব্যালট পেপার  পৌছার পর ভোট গ্রহন শুরু হয়। বেলা ৩টার দিকে বাউসা ইউপির রিফাতপুর সরকারী প্রাইমারী কেন্দ্রে জাল ভোট প্রদানকে কেন্দ্র করে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের সর্মথকরা লাটি সোটা নিয়ে নৌকার প্রার্থীর সর্মথকদের উপর  হামলার চেষ্টা করা হয়। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর কটোর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। এছাড়া গজনাইপুর ইউপির শতক প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে মেম্বার প্রার্থী মোঃ সেলিম মিয়া (ফুটবল) প্রতীক’কে বিজয়ী ঘোষনা করা হয়। এ সময় বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ আসার সাথে সাথে রেজাল্ট পরিবর্তন করে অপর মেম্বার প্রার্থী মোঃ ছালিক মিয়া (টিউবওয়েল) প্রতীককে বিজয়ী ঘোষনা করেন। এ সময় ফুটবল প্রতীকের এজেন্ট স্বাক্ষর না দিলে জোরপুর্বক তাকে আহত করে স্বাক্ষর নেয়া হয় বলে অভিযোগ করেছেন মোঃ সেলিম মিয়া। আহত’কে নবীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাউসা ইউপির ১নং সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী বর্তমান মহিলা মেম্বার আশিকুল বেগম বদরদী প্রাইমারী স্কুল, পাইকপাড়া প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে কারচুপির অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেন, তার সুনিশ্চিত বিজয়কে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। তিনি পুণঃরায় ভোট গণনার দাবী জানান। এছাড়া উপজেলার কোথায়ও কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায় নি। উপজেলার  ১৩টি ইউনিয়নে ৪টিতে নৌকা, ৪টি বিদ্রোহী, বিএনপির সমর্থিত ৩টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ২টিতে বেসরকারী ভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তারা হলেন, ১নং বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউনিয়নে  স্বতন্ত্র প্রার্থী রঙ্গলাল দাশ  (ঘোড়া)। তার প্রাপ্ত ভোট সংখ্যা-৪২০৬। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি নৌকার প্রার্থী সমর দাশ পেয়েছেন ২৯৪০ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সত্যজিৎ দাশ (চশমা)। তার প্রাপ্ত ভোট ২২৮৫। ২নং বড় ভাকৈর (পুর্ব) ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে আক্তার মিয়া ছুবা বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৩৬০১। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বিদ্রোহী প্রার্থী প্যানেল চেয়ারম্যান খালেদ মোশারফ পেয়েছেন ৩৪২৪ ভোট। সাবেক চেয়ারম্যান বিদ্রোহী প্রার্থী মেহের আলী মালদার (আনারস)। তার প্রাপ্ত ভোট ৩১২০। ৩ নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিদ্রোহী প্রার্থী নোমান আহমদ  (ঘোড়া)। প্রাপ্ত ভোট ৬৭৭০। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি অপর বিদ্রোহী ছায়েদ উদ্দিন (মটরসাইকেল)। প্রাপ্ত ভোট-৪৮১২। নৌকার প্রার্থী আছাবুর রহমান পেয়েছেন ১৫৮২ ভোট। ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আবু সাঈদ এওলাকে হারিয়ে বিজয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা মোঃ ছালিক মিয়া (আনারস)। প্রাপ্ত ভোট ৩৯৮৫। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকার প্রার্থী আবু সাঈদ এওলা। প্রাপ্ত ভোট-৩৪৬০। স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আব্দুল গফ্ফার ৩৪০৫, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউপি বিএনপি সভাপতি আব্দুল বারিক রনি প্রাপ্ত ভোট ২৪৯৬। ৫নং আউশকান্দি ইউনিয়নে নৌকার মনোনিত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান দিলাওর হোসেন  নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। প্রাপ্ত ভোট-৬৭২৫। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী মোফাজ্জুল হক (চশমা)। প্রাপ্ত ভোট ৩৭৫৯। ৬নং কুর্শি ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান নৌকার প্রার্থী আলী আহমদ মুছাকে হারিয়ে  বিজয়ী হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ (আনারস)। তার প্রাপ্ত ভোট-৫০৫৯। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল মুকিত  (চশমা) প্রাপ্ত ভোট ৪৫০১। নৌকার প্রার্থী আলী আহমদ মুছার প্রাপ্ত ভোট-৩২৩৮। ৭নং করগাও ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কৃত নির্মলেন্দু দাশ রানা বিশাল ভোটের ব্যবধানে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। তার প্রাপ্ত ভোট-৭৭২৬। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মোঃ ছাইম উদ্দিন (আনারস)। তার প্রাপ্ত  ভোট ৬০৯১ ভোট। ওই ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বজলুর রহমান পেয়েছেন ১৬৫৬ ভোট। ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে  প্রথম বারের মতো নির্বাচিত হন নৌকার প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। প্রাপ্ত ভোট ৪৪৩৪। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বর্তমান চেয়ারম্যান বিদ্রোহী প্রার্থী সাজু চৌধুরী (আনারস)। প্রাপ্ত ভোট-৩৫০৪। স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা জাকির হোসেন চৌধুরীর প্রাপ্ত ভোট ২১৪৩। ৯ নং বাউসা ইউনিয়নে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বিএনপি নেতা সাদিকুর রহমান শিশু (আনারস)। প্রাপ্ত ভোট ৬২০৪। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বিদ্রোহী প্রার্থী জুনেদ চৌধুরী (ঘোড়া)। প্রাপ্ত ভোট-৫১০৪। নৌকার প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আবু সিদ্দীক পেয়েছেন ৩৯১৯ ভোট। ১০ নং ইউনিয়নে প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম এডভোকেট জাবিদ আলীর সুযোগ্য পুত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহ রিয়াজ নাদির সুমন চশমা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৫৯৬০। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মুহিত চৌধুরী। প্রাপ্ত ভোট ৩৫৮৪। ওই ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেতা প্রাক্তন মন্ত্রী মরহুম দেওয়ান ফরিদ গাজী এবং বর্তমান এমপি দেওয়ান শাহ নওয়াজ মিলাদ গাজী’র জন্ম স্থানে নৌকার ভরাডুবিতে আলোচনার ঝড় বইছে। ১১ নং গজনাইপুর ইউনিয়নে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন বর্তমান চেয়ারম্যান সদ্য বহিস্কৃত উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বিদ্রোহী প্রার্থী ইমদাদুর রহমান মুকুল ( আনারস)। তার প্রাপ্ত ভোট ৬৮৮৪। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি বিএনপি নেতা সফিউল আলম বজলু (চশমা)। প্রাপ্ত ভোট ৪৫৫৯। নৌকার প্রার্থী সাবের হোসেন এর প্রাপ্ত ভোট ১৯৭১। স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা আবুল খয়ের কায়েদ  (ঘোড়া) প্রতীকে ৪৫৩ ভোট পান। হাফেজ মোঃ আইয়ুব আলী (অটো রিক্সা) প্রতীকে ৬৬ ভোট পেয়েছেন। ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান এমদাদুল হক চৌধুরী ( আনারস)। প্রাপ্ত ভোট-৩৬১৭। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম  (ঘোড়া) প্রাপ্ত ভোট-২৮৩৪। ১৩নং পানিউন্দা ইউনিয়নে বিপুল ভোটের ব্যবধানে ৬ষ্ট বারের মতো নির্বাচিত হন বর্তমান চেয়ারম্যান নৌকার ্রপার্থী ইজাজুর রহমান। প্রাপ্ত ভোট-৭৩৫৮। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধিতা করেন বিদ্রোহী প্রার্থী মুহিবুর রহমান মামুন ( আনারস)। প্রাপ্ত ভোট-৫৫৩৪। এদিকে এবারের নির্বাচনে নৌকার বিশাল ভরাডুবি হওয়ায় ব্যাপক আলোচনার জন্ম নিয়েছে।  এছাড়া স্থানীয় সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ মিলাদ উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের, বিদ্রোহী, বিএনপি ও স্বতন্ত্র বিজয়ীদের তার ফেসবুক আইডিতে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

Last modified on Sunday, 28 November 2021 23:28
Login to post comments
  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular