Tuesday, 05 May 2020 04:27

মাধবপুরে ভেঙে যাওয়া সড়কে সাঁকো বানিয়ে চাঁদা আদায় Featured

✍ মাধবপুর প্রতিনিধি::

পাহাড়ি ঢলে হবিগঞ্জের মাধবপুরের শাহজাহানপুর ইউনিয়নে নোয়াহাটি মনতলা রোডের সিমনাছড়া এলাকায় একটি বিকল্প সড়ক ভেঙে গেছে গত তিনদিন আগে। এতে করে মাধবপুর উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগের নোয়াহাটি মনতলা সড়কটি সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজন একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করে পারাপার হওয়া লোকজনের নিকট থেকে ১০ টাকা করে আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, গত শুক্রবার (১ মে) রাত থেকে শনিবার (২ মে) সকাল পর্যন্ত প্রবল বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট পাহাড়ি ঢলে সড়কটি ভেঙ্গে যায়। এর আগে মনতলা রোডের সিমনাছড়ার উপর নতুন ব্রিজ নির্মাণ কাজের জন্য পুরনো ব্রিজটি ভেঙে ফেলা হয়। এরপর যানবাহন ও জনসাধারণের চলাচলের সুবিধার্থে পুরোনো ব্রিজের পাশ দিয়ে বিকল্প একটি রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু বিকল্প সড়কে পানি নিষ্কাশনের জন্য দু’টি পাইপ দেওয়া হলেও অতিরিক্ত পানির স্রোতে সড়কটি সম্পূর্ণ ভেঙে যায়। এ বিষয়ে মাধবপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. জুলফিকার হক চৌধুরী বলেন, দুই/একদিনের মধ্যে পানি কমে যাবে। তখন আবার বিকল্প সড়কটি নির্মাণ করে ব্রিজে কাজ শুরু করা হবে। তবে বাঁশের সাঁকো বানিয়ে কে বা করা চাঁদা আদায়ে করছে এ সম্পর্কে কিছু জানি না। উল্লেখ্য, এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন ধর্মঘর, চৌমুহনী, বহরা ও শাহজাহানপুর ইউনিয়নের শত শত যানবাহন ও হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এসব মানুষ পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। এই ভোগান্তির জন্য এলাকাবাসী সিমনাছড়া ব্রিজের নির্মাণকাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে দায়ী করছেন। এ ব্যাপারে ঠিকাদার আবুল কাসেম জানান, পানি কমে গেলে বিকল্প সড়কটি মেরামত করা হবে। ইঞ্জিনিয়ারের অসহযোগিতার কারণে ব্রিজের কাজ দ্রুত শেষ করা যাচ্ছে না। তবে বাঁশের সাঁকো তৈরি করে চাঁদাবাজির কথা তিনি কিছু জানেন না। শাহজানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তৌফিক আলম চৌধুরীর বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার দূরের ব্রিজটিতে দুইদিন যাবত চাঁদাবাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন অনেকেই। এ ব্যাপারে জানতে ইউপি চেয়ারম্যানকে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এলাকার সচেতন মহল পর্যাপ্ত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা রেখে একটি সংযোগ সড়ক পুনরায় নির্মাণ করে ব্রিজটির নির্মাণকাজ শুরু ও বাঁশের সাঁকো পারাপারে চাঁদাবাজি বন্ধ করার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

Read 520 times
Rate this item
(1 Vote)
Login to post comments
  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular
X

দুঃখিত !

ওয়েব সাইটে এই অপশন নাই।