হবিগঞ্জ সংবাদ

হবিগঞ্জ সংবাদ (1438)

হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের আয়োজনে সাবেক তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।শুক্রবার (০৭ মে) ২৪ রমজান ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছ। উপস্থিত ছিলেন ,হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি'র সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট মন্জূর উদ্দিন শাহিন, হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি'র যুগ্ন আহবায়ক এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম ,জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি এম জি মুহিত ,জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি আজিজুর রহমান কাজল, জেলা বিএনপির সদস্য মহিবুল ইসলাম শাহিন, আব্দুল ওয়াদুদ তালুকদার আব্দাল, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব আলী পোদ্দার, জেলা তাঁতী দলের সভাপতি সৈয়দ তোফায়েল ইসলাম কামাল, জেলা জাসাস সভাপতি অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল হক শরিফ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবু তাহের, বিএনপি নেতা এডভোকেট আফজাল হোসেন, হাবিবুর রহমান হাবিব, শাহ আলম চৌধুরী মিন্টু, জেলা শ্রমিকদলের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সোহেল আহমদ চৌধুরী, হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক কাউন্সিলর সফিকুর রহমান সিতু, সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম সেলিম , মহসিন শিকদার, আব্দূল মালেক, তৌফিকুল ইসলাম রুবেল, আবুল কাশেম জুয়েল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খান, এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল, রবিউল আলম রবি, নজরুল ইসলাম কাওছার, মোঃ জমির আলী, আব্দুল কাইয়ুম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর হেলাল আহমেদ টিপু, মালেক শাহ, আঃ খালেক জুয়েল, দপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান সুমন, এডভোকেট জসিম উদ্দিন, হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ রাজিব আহমেদ রিংগন, সহ সভাপতি সফিকুল ইসলাম লিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম রকি, আল আমিন তালুকদার, বিএনপি নেতা ফজলে নকিব মাখন,মোঃ ফরিদ মিয়া, হাবিবুর রহমান বেনু, ফারুক আহমেদ, আঃ আওয়াল মেম্বার, মোঃ শাহিন মিয়া, যুবদল নেতা সাদিকুর রহমান লিটন, অলিউর রহমান অলি, সাইদুর রহমান শামীম, মাহবুবুর রহমান মালু, আমিরুল ইসলাম আখন্জি, শাহ নেওয়াজ মেম্বার, আব্দুল হান্নান নানু, মোশাহিদ আহমেদ,যার আমিন সোহাগ, জয়নাল আবেদীন, কাউন্সিলর মোঃ জালাল মিয়া, মোহাম্মদ আলমগীর মিয়া, শাহজাহান জিতু মেম্বার, শাহেদ আহমেদ রিপন, মোঃ শিশু মিয়া, মোঃ অনু মিয়া, ওয়াহিদুজ্জামান মোরাদ, আরজত আলী, শামীম আহমেদ নাসির, শামীম আহমেদ, আফজাল খা‌ঁন, জাহিদ হোসেন কবির, জহিরুল ইসলাম সোহেল, শাহজাহান মাহমুদ,মাসুম আহমদ, সাইফুল ইসলাম, শামিম মিয়া, মাসুক আহমদ মাসুক, সিদ্দিক আলী, আকতার হোসেন, আমিনুল হক, আসকির মিয়া, আমিন শাহ, নুরুল হক জিএম , রবিউল আউয়াল লুকুজ, আকতার হোসেন, এমন ডি দুলাল, সৈয়দ আলী, আজম খান, সিতেশ দাস সাগর, মিলন ভূঁইয়া,মাসুক আহমদ, নাসির হোসেন, বাবু, জাকির, ছাত্রদল নেতা সৈয়দ আশরাফ, নাজমুল হোসেন অনি, ইমন, রনি প্রমূখ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ অসুস্থ সকল নেতৃবৃন্দের সুস্থতা কামনায় মোনাজাত করা হয়।

নবীগঞ্জে সরকারি জমিতে নির্মিত একটি ভবন উচ্ছেদ থেকে রক্ষার কথা বলে '৫০ লাখ টাকা ঘুষ' দাবীর অভিযোগে নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মো. আবিদ আলীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আলোচিত ঘটনার অভিযোগের সত্যতা তদন্তে প্রমানিত হলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসন। এ সংক্রান্ত একটি চিঠি গত বৃহস্পতিবার (৬ মে) সংশ্লিষ্ট দপ্তরে এসে পৌঁছেছে বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানাগেছে।
উপজেলা প্রশাসন ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নবীগঞ্জ উপজেলার শিবপাশা এলাকার ফরছু মিয়া চৌধুরী নামের এক যুক্তরাজ্য প্রবাসী নিম্বর টাওয়ার নামের একটি বহুতল ভবন নির্মাণ করেন। সমপ্রতি নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মো. আবিদ আলী এ ভবনের তত্ত¡াবধায়ক মো. জয় চৌধুরী ও মো. আল আমিন চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করেন।
তাঁদেরকে আবিদ আলী বলেন, ভবনের ভেতরে সরকারের জমি রয়েছে। উক্ত সরকারি জমি থেকে ভবন সরাতে হবে। এক পর্যায়ে তিনি মালিককে প্রস্তাব দেন, তাঁকে ৫০ লাখ টাকা দিলে তাঁদের আর এ মার্কেট ভাঙতে বা সরাতে হবে না। বিষয়টি রফাদফা করার জন্য স¤প্রতি উভয় পক্ষ নবীগঞ্জ শহরের একটি আধুনিক রেস্তোরাঁয় বসেন। এ সময় ভবনের মালিক পক্ষ উপ-সহকারী কর্মকর্তা মো. আবিদ আলীর সব কথাবার্তা মুঠোফোনে রেকর্ড করেন।
এক পর্যায়ে আবিদ আলী ভয়ভীতি দেখালে ক্ষুব্ধ হয়ে ভবনের তত্ত্বধায়ক মো. আল আমিন চৌধুরী গত ৬ এপ্রিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। পরে বিষয়টি ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন নিজে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পান। তিনি এ –সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন গত ১২ এপ্রিল হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠান। জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান গত ২২ এপ্রিল উপ-সহকারী কর্মকর্তা মো. আবিদ আলীকে তাঁর পদ থেকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশে স্বাক্ষর করেন। নবীগঞ্জ সদর উপজেলা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা বিষ্ণু ভট্টাচার্য্য জানান, ওই ভূমি কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ  বৃহস্পতিবার (৬ মে) তাঁর কার্যালয়ে এসে পৌঁছেছে।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওই ভূমি কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এছাড়া অপর একটি সুত্রে জানাগেছে, উক্ত উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আবিদ আলী এর আগেও একবার সাময়িক বরখাস্ত হয়েছিলেন। ফলে মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছিল। কিন্তু পুণঃবহাল হয়ে আবার নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ভুমি অফিসে যোগদান করার পর তার বিরুদ্ধে ঘুষ, দূর্নীতি ও অনিয়মের ব্যাপক অভিযোগ উঠে। বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিকে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ হয়। তবুও উপ-সহকারী কর্মকর্তা আবিদ আলী বীরদর্পে তার অবৈধ কার্যকলাপ চালিয়ে যায়। তিনি অতি সম্প্রতি কমলাপুর মৌজাস্থ সরকারী ভুমি থেকে মাটি উত্তোলনের মৌখিক অনুমতি দিয়ে জনৈক ব্যক্তিদ্বয়ের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা গ্রহন করেন। ওই লোকজন সরকারী ওই জায়গায় পুকুর তৈরীসহ ঘরবাড়ি তৈরী করেছে। আবার একই জায়গায় (খাল রকম ভুমি) জনৈক ব্যক্তি ধান রোপন করলে আবিদ আলীর দাবীকৃত ৩০ হাজার টাকা না দেয়ায় সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে ওই জমিতে ফলানো ধান জব্দ করেন এবং তার পছন্দের জনৈক মেম্বারের তত্ত¡াবধানে ওই জমি জিম্মায় দেন। এভাবে অসংখ্য ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে উপ-সহকারী কর্মকর্তা আবিদ আলীর বিরুদ্ধে। ভুক্ত ভোগীদের দাবী ওই ঘুষখোর আবিদ আলীকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হউক।

দক্ষিণ আফ্রিকায় হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আরমান মিয়া (৩০) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি উপজেলার গেয়ালনগর গ্রামের সোহরাব মিয়ার ছেলে।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) বাংলাদেশ সময় সকালে দক্ষিণ আফ্রিকার জোহান্সবার্গে একটি বাসার বাথরুম থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। সেখানেই তাকে দাফনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তবে তার মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি।

আরমানের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ১০ ভাই-বোনের মধ্যে আরমান সবার ছোট। দুই বছর আগে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়েছিলেন। সেখানে একটি চায়ের দোকানে চাকরি করতেন।

আদাঐর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক পাঠান বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকায় আরমানের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধারের ঘটনাটি তার পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে জেনেছি। মৃত্যুর কারণ এখনও জানা যায়নি। ওই দেশেই আরমানের মরদেহ দাফন করা হবে।

হবিগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার প্রথম পৃষ্টায় নবীগঞ্জে প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ইউপি চেয়াম্যানের ছাইম উদ্দিনের বিরোদ্ধে শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। আমাকে জড়িয়ে সে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে তা সত্য নয়। ইউনিয়ন বাসীর আমাকে ভালবেসে আমাকে ২ বার তাদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন। আমি আমার পরিবার ও আমার গ্রামবাসী ইউনিয়ন বাসীর কাছে চিরঋণী। আমি মৃত্যুর আগ মূহুর্ত পর্যন্ত ইউনিয়নবাসীর সুখে দুখে পাশে ছিলাম ভবিষ্যতে থাকবো। ইউনিয়ন বাসী জানেন আমি কেমন প্রকৃতির লোক। আমার জনপ্রিয়তা ঈশ্বাণিত হয়ে একটি মহল আমার বিরোদ্ধে এই অপ- প্রচারের লিপ্ত রয়েছে। প্রকৃত ঘটনা হলো ওই মহিলার প্রতিবন্ধী বই পাওয়া যাচ্ছিল না সে কারনে তার টাকা উত্তলন করতে পারে নাই। আমি অফিসের কাগজ পত্র খুজে ওই মহিলার বই পাওয়ার পর তাকে খবর দিয়ে তার বই হাতে তুলে দেই। পরে শুনতে পারি ওই মহিলার বই থেকে কে বা কারা টাকা তুলে নিয়ে গেছে। আমি নিজে সবকিছু খোজ খবর নিয়ে মহিলার টাকা তার হাতে তুলে দেই। আমার সাথে নির্বাচনে পরাজিত এক প্রার্থী ওই মহিলাকে দিয়ে ওই মিথ্যা অভিযোগ দাখিল করার পর মহিলা নিজেই এসে ওই অভিযোগ তুলে নিয়ে আমার কাছে ক্ষমা চায়। এই বিষয় সেদিনই শেষ হয়ে যায়। এর কিছুদিন পর ওই মহিলার ঘটনাকে দিয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার বিরোদ্ধে এই কাল্পনিক ঘটনার সাথে নাম ছড়িয়ে পত্রিকায় ওই  মিথ্যা  সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে। আমি উক্ত মিথ্যা সংবাদের তীব্র  প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করছি। আমি আমার ইউনিয়নবাসীসহ নবীগঞ্জ উপজেলা বাসীকে এমন মিথ্যা সংবাদে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানাচ্ছি।

মোঃ ছাইম উদ্দিন
চেয়ারম্যান
করগাও ইউনিয়ন নবীগঞ্জ

রমজান উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের নগদ অর্থ সহায়তা (ভিজিএফ) কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদ এমপি।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) দুপুরে উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের ১ হাজার ৪৩৪জন অসহায় হত দরিদ্র মানুষের মাঝে ৪শত ৫০ টাকা করে নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ করা হয়।

এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন, বাউসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সিদ্দিক, বাউসা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি দিপ্তেন্দু দাশ বিধু,নবীগঞ্জ পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব

বিভিন্ন ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যসহ আওয়ামী লীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর ইউনিয়নের কামরাখাই গ্রামে জিতু মিয়া (৩০) নামের ২ সন্তানের জনকের আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে।জানাযায়,  জিতু মিয়া গত মঙ্গলবাল সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ ছিল।পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজা খোঁজির পর কোন সন্ধ্যান পায়নি।হঠাৎ পরিবারের লোকজন বুধবার সন্ধ্যায় কামরাখাই গ্রামে তার বাড়ির পাশের পুকুর পাড়ে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে তার পরিবারের লোকজন থানায় খবর পৌঁছালে এস আই বিজয় দেব নাথসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশটির সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তর জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরন করা হয়।২ সন্তানের জনক জিতু মিয়া কামরাখাই গ্রামের রোয়াইতুল্লার পুত্র।পরিবারের লোকজনের দাবী জিতু মিয়া মানসিক রোগে ভুগছিলেন।আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেন এস আই বিজয় দেব নাথ।

হবিগঞ্জ শহরের মোহনপুর এলাকার পানি নিষ্কাশনের ড্রেন থেকে জীবিত এক নবজাতক উদ্ধার করে মহানুভবতার পরিচয় দিলেন এক নারী। পরে ওই নবজাতককে চিকিৎসার জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ওই নবজাতককে পড়ে থাকতে দেখে ওই এলাকার ভাড়াটিয়া মৃত রমজান মিয়ার স্ত্রী জোসনা আক্তার তাকে পানি নিষ্কাষনের ড্রেন থেকে উদ্ধার করে পরিষ্কার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি করেন। তিনি বলেন, ‘আমি বাজারে মাছ কেটে জীবিকা নির্বাহ করি। আমার একটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে। যদি ওই নবজাতকের পিতা-মাতা না পাওয়া যায় তবে আমিই ওই নবজাতককে লালন পালন করব।’ তিনি আরও বলেন, কোন মানুষের পক্ষে এ ধরণের কাজ সম্ভব নয়। এদিকে গতকাল বিকেলে সরেজমিনে হাসপাতালে গেলে দেখা যায় ফুটফুটে ওই শিশুকে দত্তক নিতে অনেকেই ইচ্ছা পোষণ করছেন। হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের স্ক্যানো ওয়ার্ডের চিকিৎসক ডা. তানভীর বলেন, ‘উদ্ধার হওয়া ছেলে নবজাতককে আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থ হয়েছে। তাকে সব ধরণের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।’ হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুক আলী বলেন, ‘উদ্ধার হওয়া নবজাতকের পিতা-মাতাকে পুলিশ খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে। পাওয়া না গেলে কেউ দত্তক নিতে চাইলে দেয়া হবে।

নবীগঞ্জ উপজেলার কুর্শী ইউনিয়নে কুর্শি গ্রামে জোর পূর্বক ধান কাটাকে কেন্দ্র করে দূর্বত্তদের হামলায় মহিলাসহ ১০ জন আহত হয়েছেন । আহতের মধ্যে ৪ জনকে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। হামলাকারীরা হামলা চালিয়ে ধান লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধান উদ্ধার করে।  মঙ্গলবার সকালে এই ঘটনাটি ঘটেছে। জানাযায়, পূর্ব বিরোধের জের ধরে কুর্শী গ্রামের মােঃ মানজার শিকদার মালিকাধীন ফসলি জমির ধান জোরপূর্বক ভাবে কেটে নিয়ে যায় একই এলাকার জাহাঙ্গীর মিয়া,দিলবাহার আহমেদ দিলকাছ,জয়নাল মিয়া,কালা মিয়া,ফুল মিয়া,বাছির মিয়া,সাদেক চৌধুরী,নাজিম উদ্দিনগংরা। খবর পেয়ে জায়গার মালিক  ধান কাটাতে বাধা সৃষ্টি করলে দুর্বত্তদের হামলায়  মানজার শিকদার (২৬) তার মামা সাজ্জাদুর রহমান (৪৮),শাহ শামীম মিয়া (৫০),ও মাসেদা বেগম (৫০),কে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা প্রাদান করা হয়েছে।হামলার খবর পেয়ে ঘটন্থল পরিদর্শন করেন এস আই আবু সাঈদ।এ সময় হামলাকীরা লোট করে ধান নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ দেখে দৌড়ে পালিয়ে যায়।পুলিশ ধান গুলো স্থানীয় লোকজনের জিম্মায় রেখে আসেন।

নবীগঞ্জে সরকারি পর্যায়ে অভ্যন্তরীণ বোরোধান সংগ্রহ ২০২১ শুরু হয়েছে। সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে ধান কেনা হবে।সোমবার দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলা খাদ্য গুদামে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ক্রয় অভিযানের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন।এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ.কে.এম মাকসুদুল আলম, উপজেলা পল্লী জীবিকায়ন কর্মকর্তা সাকিল আহমেদ, কুর্শি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী আহমদ মুসা, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জসিম উদ্দিন, নবীগঞ্জ খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা অলক বৈষ্ণবসহ আরও অনেকেই।খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে অভ্যন্তরীণ বোরোধান ২৭ টাকা কেজি বা ১ হাজার ৮০ টাকা মন দরে উপজেলায় ১৬৯২ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হবে।নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ.কে.এম মাকসুদুল আলম বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের মাধ্যমে কৃষকদের তালিকা যাচাই-বাছাই ও পরবর্তীতে লটারির মাধ্যমে কৃষকদের চুড়ান্ত তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ২৭ টাকা কেজি দরে বোরো ধান কেনা শুরু হয়েছে। উক্ত সংগ্রহ কার্যক্রম ১৬ আগষ্ট ২০২১ পর্যন্ত চলবে।

নবীগঞ্জের হেফাজত নেতা মাওঃ হাফেজ আব্দুল মুকিত নামের একজনকে আটক করেছে ঢাকা ডিবি পুলিশ। গত ১ মে দিবাগত রাত ২ টায় দিকে ঢাকা ডিবি পুলিশের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শাকোয়া বাজার মারকাযুস সুন্না আল ইসলামিয়া মাদ্রাসা থেকে তাকে আটক করা হয়। তিনি ওই মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতা মুহতামিম। তবে কি কারনে বা কেন তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তার পরিবারের লোকজন বলতে পারছেন না। সুত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার করগাওঁ ইউনিয়নের ছোট সাকুয়া গ্রামের রাঙ্গা মিয়ার ছেলে হাফেজ মাওঃ আব্দুল মুকিত ছাত্র জীবনে প্রথমে জামেয়া দারুল কোরআন মাদ্রাসা সিলেট ও পরবর্তীতে জামেয়া মাদানিয়া ইসলামিয়া কাজির বাজার মাদ্রাসা সিলেট থেকে টাইটেল পাশ করেন। পরবর্তীতে সিলেটের একটি মসজিদে ইমামতি পেশার সাথে যুক্ত হন। পাশাপািশ তিনি ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন চরমোনাই এর রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছেন বলে প্রাপ্ত সুত্রে জানাগেছে। প্রায় দুই বছর আগে সিলেট থেকে নবীগঞ্জস্থ তার জন্মস্থান সাকুয়া বাজার সংলগ্ন মারকাযুস সুন্না আল ইসলামিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্টা করেন। প্রতিষ্টাকাল থেকেই তিনি অত্র মাদ্রাসার মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করে আসছে। সম্প্রতি সারা দেশে হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের চলমান আন্দোলনে নবীগঞ্জ শাখার বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসুচীতে সরব ভুমিকা পালন করতে দেখা গেছে। এদিকে ১ মে দিবাগত রাত ২টার দিকে ঢাকা থেকে ডিবি পুলিশের একটি দল তার মাদ্রাসা থেকে হাফেজ আব্দুল মুকিতকে আটক করে ঢাকায় নিয়ে যায়। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা মাদ্রাসায় অবস্থানরত অন্যান্য শিক্ষকদের ঢাকা ডিবি পুলিশের লোক বলে পরিচয় দেন। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, শুনেছি ঢাকার আইনশৃংখলা বাহিনীর একটি টিম হাফেজ আব্দুল মুকিতকে আটক করে নিয়ে গেছেন। তবে তিনি নবীগঞ্জ থানাকে আনুষ্টানিকভাবে আটক করার বিষয়ে অবগত করা হয়নি বলেও জানান।এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ডালিম আহমদ জানান, ঢাকা থেকে আইনশৃংখলা বাহিনীর একটি বিশেষ টিম হাফেজ আব্দুল মুকিতকে আটক করেছেন। এছাড়া হাফেজ আব্দুল মুকিত এর পরিবার ও সহপাটিরা কি কারনে বা কেন তাকে আটক করা হয়েছে তারা জানেন না। ধারনা করা হচ্ছে, চলমান হেফাজতে ইসলামিয়া বাংলাদেশের বিভিন্ন আন্দোলনের গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন এবং এ সংক্রান্ত বিভিন্ন অভিযোগের সুত্রধরেই তাকে আটক করেছেন ঢাকা ডিবি পুলিশ।

  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular
X

দুঃখিত !

ওয়েব সাইটে এই অপশন নাই।